কান্নায় ভেঙে পড়লেন তাসকিন

শেষ পর্যন্ত শঙ্কাই হল সত্যি। ফিটনেস অর্জন নিয়ে সন্দেহ প্রকাশ করে তাসকিন আহমেদকে বিশ্বকাপ দলে রাখা নিয়ে সংশয় প্রকাশ করেছিলেন নির্বাচকরা। ডানহাতি পেসার বিশ্বকাপের দলে তো বটেই, আয়ারল্যান্ডে অনুষ্ঠিতব্য ত্রিদেশীয় সিরিজের দলেও ডাক পাননি।
মঙ্গলবার বিশ্বকাপ ও ত্রিদেশীয় সিরিজের জন্য দল ঘোষণা করেন নির্বাচকরা। ঘোষিত এই দুই দলের কোথাওই জায়গা পাননি তাসকিন। সংবাদমাধ্যমের মুখোমুখি হতেই ভেঙে পড়লেন কান্নায়।

তাসকিনের কান্না করাই তো স্বাভাবিক! বিপিএলে পাওয়া চোটের কারণে বেশ কদিন ছিলেন মাঠের বাইরে। এর আগের বছরটাও চোটে-চোটে কেটেছে। এবারের চোট থেকে সেরে ওঠবার জন্য তাসকিনের চেষ্টার কোনো কমতি ছিল না। তড়িঘড়ি করে খেলা শুরু করেছিলেন ঢাকা প্রিমিয়ার লিগও। জানান দিয়েছিলেন শতভাগ ফিটনেসেরও।
কিন্তু তবুও দুই দলের কোনোটিতেই সুযোগ না হওয়ায় ভেঙে পড়েছেন তাসকিন।সংবাদমাধ্যমের সাথে আলাপকালে কান্নাজড়িত কণ্ঠে গত বিশ্বকাপে বাংলাদেশের সেরা বোলার বলেন, ‘সবাই তো ভালোই চায়, খারাপ চায় না কেউ। সামনে আরও সুযোগ আছে। আমি আমার চেষ্টা চালিয়ে যাবো। ডিপিএলের সুপার লিগটা আরও ভালো খেলার চেষ্টা করব।’

কান্নাজড়িত কণ্ঠে এ সময় কথা বলতেও কষ্ট হচ্ছিল তাসকিনের। ম্যাচ ফিটনেস সংক্রান্ত সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘সবাই যেটা ভালো মনে করেছে ওটাই করেছে। সবাই দোয়া করবেন আমার জন্য। আমি চেষ্টা করব ভালো করার।’
সর্বশেষ বিপিএলে সিলেট সিক্সার্সের জার্সি গায়ে সবগুলো ম্যাচে অংশ নিয়ে ২২টি উইকেট শিকার করেন তাসকিন আহমেদ। আসরে সিলেট সিক্সার্সের শেষ ম্যাচে বাউন্ডারি লাইনে বল লাফ দিয়ে ধরতে গেলে পায়ে চোট পান তিনি, যা তাকে দীর্ঘ সময় রেখেছে মাঠের বাইরে।

একনজরে বাংলাদেশের বিশ্বকাপ স্কোয়াড :মাশরাফি বিন মুর্তজা (অধিনায়ক), তামিম ইকবাল, লিটন দাস, সৌম্য সরকার, সাকিব আল হাসান, মুশফিকুর রহিম (উইকেটরক্ষক), মোহাম্মদ মিঠুন, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ, সাব্বির রহমান, মেহেদী হাসান মিরাজ, রুবেল হোসেন, মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন, মুস্তাফিজুর রহমান, আবু জায়েদ রাহী ও মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত।বিডিক্রিকটাইম