পুলিশ সদস্যের বাড়িতে বিষের বোতল নিয়ে প্রেমিকার অবস্থান

স্ত্রীর মর্যাদা না দিলে আর বাবার বাড়িতে ফিরে যাব না। এজন্যই হাতে বিষের বোতল নিয়ে এসেছি। যদি ফিরতেই হয়, তাহলে লাশ হয়ে ফিরবো।’ প্রেমিক পুলিশ সদস্যের প্রতারণার শিকার হয়ে বুধবার বিকেলে এসব কথা বলেন খাজিদা আক্তার আঁখি (২১)। বিয়ের দাবিতে মঙ্গলবার বিকেলে প্রেমিক পুলিশ সদস্যের বাড়িতে গিয়ে ওঠেন তিনি। ঘটনাটি ঘটেছে ময়মনসিংহ জেলার গৌরিপুর উপজেলায়। অভিযুক্ত প্রেমিক পুলিশ সদস্যের নাম জাহাঙ্গীর আলম।

জানা যায়, মঙ্গলবার বিকেল থেকে ওই তরুণী ময়মনসিংহের গৌরীপুর উপজেলার ডৌহাখলা ইউনিয়নের পানাটি গ্রামের শামছুল হকের ছেলে পুলিশ সদস্য জাহাঙ্গীর আলমের বাড়িতে অবশন করছেন। প্রেমিকা খাদিজা আক্তার আঁখি একই উপজেলার রামগোলপুর ইউনিয়নের ধুরুয়া গ্রামের কৃষক আবুল কাশেমের মেয়ে। অভিযুক্ত প্রেমিক ও পুলিশ সদস্য জাহাঙ্গীর আলম (পুলিশ নং-৫৪৩৯) বর্তমানে রাজধানীর উত্তরা থানায় কর্মরত আছেন।

এদিকে স্বামীর অধিকার আদায়ের জন্য প্রেমিকা খাদিজা আক্তার ময়মনসিংহ পুলিশ সুপার বরাবরে একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন।বিয়ের দাবিতে প্রেমিকের বাড়িতে অনশন করা প্রেমিকা খাদিজা আক্তার জানান, ৬ বছর আগে জাহাঙ্গীরের সাথে তার প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। পরবর্তীতে নিজেদের পরিবারের সদস্যদের না জানিয়ে গত বছর সেপ্টেম্বর মাসে আদালতে এফিডেভিট ও রেজিস্ট্রি কাবিন করে বিয়ে করেন তারা।

তিনি আরো বলেন, বিয়ের পর তারা ময়মনসিংহ শহরে একটি ভাড়া বাসায় প্রায় ৩ মাস স্বামী-স্ত্রী হিসেবে একসাথে বসবাস করেন। এরপর জাহাঙ্গীর তার পরিবারের সদস্যদের ম্যানেজ করে ঘরে তুলে নেয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়ে তাকে বাড়িতে পাঠিয়ে দিয়ে যোগাযোগ বন্ধ করে দেন।

কিছুদিন পর প্রেমিকা খাদিজাকে না জানিয়ে দ্বিতীয় বিয়ে করেন প্রেমিক জাহাঙ্গীর। এদিকে দ্বিতীয় বিয়ের ঘটনা জানার পর জাহাঙ্গীরের নিকট স্ত্রীর মর্যাদা দাবি করে ঘরে তুলে নেয়ার আকুতি জানায় খাদিজা। এ সময় জাহাঙ্গীর তাদের স্বামী-স্ত্রীর সম্পর্কের কথা অস্বীকার করে উল্টো তাকে নানা হুমকি প্রদান করে।এ ব্যাপারে কথা বলতে বুধবার দুপুরে পুলিশ সদস্য জাহাঙ্গীর আলমের মোবাইল ফোন নাম্বারে কল করা হলেও অপরপ্রান্ত থেকে ফোন রিসিভ করেননি।

এ বিষয়ে জাহাঙ্গীরের বড় ভাই সাদ্দাম হোসেন জানান, খাদিজার সাথে তার ভাইয়ের বিয়ের ঘটনা তাদের পরিবারের লোকজন আগে জানত না। মঙ্গলবার বিকেলে ওই তরুণী তাদের বাড়িতে অবস্থান করার পর ঘটনাটি তারা জানতে পারেন।উৎসঃ নয়াদিগন্ত