কপাল খুলল মালয়েশিয়া যেতে ইচ্ছুক বাংলাদেশী শ্রমিকদের

মালয়েশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী সাইফুদ্দীন আব্দুল্লাহ বলেছেন, ‘‌‌নিয়ম-কানুন ও পলিসি সংশোধন করে বিদেশি শ্রমিক নিয়োগ সংক্রান্ত সমস্যা সমাধানের চেষ্টা চলছে। অনিয়ম বা বিশৃঙ্খলার পুনরাবৃত্তি হোক তা মালয়েশিয়া সরকার চায় না।’
গতকাল সোমবার কুয়ালালামপুরে বাংলাদেশ এবং মালয়েশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী পর্যায়ের বৈঠকে এ কথা বলেন মালয় পররাষ্ট্রমন্ত্রী। দুদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী পর্যায়ের এই বৈঠকে বাংলাদেশের প্রতিনিধিত্ব করেন পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম। বৈঠকে মালয়েশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী সাইফুদ্দীন আব্দুল্লাহ বলেছেন, ‘মালয়েশিয়ার সরকার বাংলাদেশি শ্রমিকদের নিয়োগ আরো সহজ করে দিচ্ছে। সব নিয়ম অনুযায়ী হবে।’

‘মালয়েশিয়া বাংলাদেশকে সোর্স কান্ট্রি করে কর্মী নিয়োগ শুরু করেছে। যারা বৈধতা সংক্রান্ত সমস্যায় আছে তাদের বিষয়টি দ্রুত সমাধানের জন্য মালয় পররাষ্ট্রমন্ত্রীর প্রতি অনুরোধ জানান প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম।
দক্ষিণ ও দক্ষিণ পূর্ব এশিয়া কো অপারেশনের (সায়াকো) মাধ্যমে মালয়েশিয়ার সমর্থন অর্জনের জন্য কুয়ালালামপুরে চার সদস্যের একটি প্রতিনিধিদলের নেতৃত্ব দিচ্ছেন পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম। বৈঠকে অর্থনৈতিক সহযোগিতার মাধ্যমে উন্নয়নের বিভিন্ন বিষয়ে ঐক্যমত পোষণ করেছেন উভয় দেশের মন্ত্রী।
এ সময় পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী মালয়েশিয়া সরকার দ্রুত কর্মী নিয়োগের স্থগিতাদেশ প্রত্যাহার করবে বলে আশা প্রকাশ করেছেন।

বৈঠকে বাংলাদেশে আশ্রয় নেওয়া বিপুল সংখ্যক রোহিঙ্গার পাশে এবং বাংলাদেশ পাশে থেকে যে মানবতার দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে সে বিষয়ে সাধুবাদ জানান মালয়েশিয়া পররাষ্ট্রমন্ত্রী। সেইসঙ্গে রোহিঙ্গা সমস্যার আশু সুষ্ঠু সমাধানের আশ্বাস দেন, এই সমস্যা সমাধানে বাংলাদেশের পাশে থাকবে মালয়েশিয়া।

বৈঠকে মালয়েশিয়ায় নিযুক্ত বাংলাদেশের হাইকমিশনার মহ.শহীদুল ইসলাম ইসলাম, পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের ডিজি (ইন্টারন্যাশনাল অর্গানাইজেশন) এএফএম গৌছুল আজম সরকার এবং সেস্কো ফাউন্ডেশনের নির্বাহী চেয়ারম্যান সালাউদ্দিন চৌধুরী এবং মন্ত্রণালয় ও বাংলাদেশ হাইকমিশনের অন্যান্য কর্মকর্তা উপস্থিত ছিলেন।